Contact us to get featured in Entrepreneurs Magazine TSM | Call: 01684722205

যদি নিয়মিত কোন কাজ করা যায় তাহলে এক সময় সাফল্য আসে|কাকলী রাসেল তালুকদার

আমি কাকলী রাসেল তালুকদার এবং আমি একজন দেশি পণ্যের ই-কমার্স এর উদ্যোক্তা। আমার উদ্যোগের নাম হচ্ছে কাকলি’স এ্যাটিয়ার এবং এখানে আমি জামদানি শাড়ি, পাঞ্জাবি, থ্রী-পিস এবং টু-পিস বিক্রি করে থাকি।

২০১৯ সালের জুন মাসে আমি আমার পেজ খুলি এবং অনলাইনের মাধ্যমে আমার বিজনেস শুরু করি।

আমি বিয়ের আগে এবং পরে একজন শিক্ষক ছিলাম এবং ই-কমার্স বিষয়ই পড়াতাম। তবে সন্তান হবার পর আর চাকরি করা হয়নি। একটা সময় মনে হলো যে আমার একটা নিজের আইডেন্টিটি বা পরিচিতি থাকা দরকার। এ নিয়ে বেশ বিষন্নতায় ভুগতে থাকলাম এবং তখন সেই হতাশা থেকে মুক্তি পাবার জন্যই অনলাইনে কিছু করার উদ্যোগ নেই। জামদানি নিয়ে আমার আগ্রহ ছিল অনেক বছর ধরে এবং প্রায় সাত বছর এনিয়ে জানার চেষ্টা করেছি । তাই ফেসবুকে যখন কোন উদ্যোগ নিলাম তখন মনে হলো আমি জামদানি নিয়ে কাজ করতে পারি কারন এদিকে আমার জ্ঞান আছে। সেই সাথে মণিপুরী ও টাঙ্গাইলের শাড়ি নিয়ে চিন্তা করেছিলাম। পরবর্তীতে ই-ক্যাবের সাবেক প্রতিষ্ঠাতা এবং উই এর এডভাইজার রাজীব আহমেদ স্যারের পরামর্শক্রমে আমি শুধু জামদানির দিকে ফোকাস করি।

শুরুর দিকে স্ট্রাগল ছিল যথেষ্ট। আমার মনে আছে ২০১৯ সালে আমার আসলে তেমন বিক্রি হয়নি। পুরো ছয়-সাত মাসে সর্বোচ্চ এক লাখ টাকার মতো বিক্রি হয়েছিল। তবে জুন মাসে উদ্যোগ নেয়ার পরে আমি ২০১৯ সালের অগাষ্টের ২৪ তারিখে উইতে যোগ দেই এবং অক্টোবর মাসে রাজীব আহমেদ স্যারের সাথে ভালো পরিচয় গড়ে উঠে এবং তখন তিনি জামদানি ওয়েভ শুরু করেছিল। সেই সময় বিক্রি তেমন না হলেও আমি প্রতিদিন সময় দিয়েছি উইতে এবং স্যার যেখানে যখন গিয়ে কোন মিটিং করেছেন প্রায় প্রতিটাতে থাকার চেষ্টা করেছি। যার ফলে তারসাথে ভালো একটি পরিচয় গড়ে উঠে এবং তার গাইডেন্স আমি নিয়মিত পাই। তাই স্ট্রাগল কিছুটা থাকলেও সেটাকে আমি আর এখন স্ট্রাগল হিসেবে মনে করিনা বরং ঐটাই আমার অভিজ্ঞতায় পরিনত হয়েছে।

গত দেড় বছরে আমার অনেক কিছু শেখা হয়েছে এবং অভিজ্ঞতা হয়েছে। সবচেয়ে বড় যে অভিজ্ঞতা হয়েছে তা হচ্ছে যদি নিয়মিত কোন কাজ করা যায় তাহলে এক সময় সাফল্য আসে। আমি প্রতিদিন চেষ্টা করে গেছি সেল হোক বা না হোক এবং যার ফলে আমার পরিচিতি হয়েছে এবং পার্সোনাল ব্রান্ডিংটাও তৈরি হয়েছে। উই গ্রুপে আমার অনেক পরিচিতি বেড়েছে এবং সেই সাথে নিজের পেজে লাইকও বেড়েছে, এখন আমি নিজের গ্রুপেও সময় দিচ্ছি অনেক। তবে ঘুরেফিরে কথা একটাই, যে আপনাকে ভালো ফল পেতে হলে লম্বা সময় ধরে চেষ্টা করে যেতে হবে।

এখন বিক্রি মোটামুটি ভালোই। ভবিষ্যতে আমার জামদানিকে নিয়ে অনেক সপ্ন রয়েছে। আমি চাই প্রতিমাসে দেশের সব জেলাতেই আমার উদ্যোগের মাধ্যমে জামদানি বিক্রি হোক। এছাড়া দেশের বাহিরে যেয়ে জামদানি নিয়ে এক্সিভিশন করার ইচ্ছা আছে। আমার উদ্যোগকে স্টার্টআপে পরিনত করার জন্য এখন থেকে চেষ্টা করছি। আমি ফেসবুক নির্ভর ব্যবসা থেকে ধীরে ধীরে ওয়েবসাইটের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করছি এবং ইতিমধ্যে আমার ওয়েবসাইটে দেড়শোর মতো কাস্টমার রিভিউ আপলোড করেছি।

জামদানি শুধু না দেশি পণ্যের প্রচার ও প্রসারে মিডিয়ার ভুমিকা অনস্বীকার্য। আমি আশা করবো যে এই ম্যাগাজিন যথেষ্ট জোড়ালো ভূমিকা রাখবে। এটি যতবেশি হবে তা আমাদের সবার জন্য বিশেষ করে দেশি পণ্যের জন্য মঙ্গল বয়ে নিয়ে আসবে।

পেজ লিংক- Facebook.com/kakolysattire


S.Z.PRINCE

facebookhttps://web.facebook.com/S.Z.PRINCE

WhatsApp no. 01684722205

Magazine page: https://web.facebook.com/TSMEntrepreneursMagazine

আপনিও আপনার গল্প শেয়ার করতে চাইলে আমাকে ম্যাসেজ করতে পারেন।