Contact us to get featured in Entrepreneurs Magazine TSM | Call: 01684722205

“নিজের আত্নসম্মানের চিহ্ন এঁকে দেয়ার জন্য;আত্নবিশ্বাসী হয়ে প্রতিটি মেয়ের কিছু করা উচিত।নয়তো দিন শেষে সব আমি করে কিছুতেই আমি থাকব না”|জান্নাতুল ফেরদৌস মিতু

আমি জান্নাতুল ফেরদৌস মিতু।আমার ফেইসবুক প্রোফাইল আইডি মিতু রিয়াজুল।মেয়েদের থ্রি পিস, শাড়ি আর লালমোহন মিষ্টি নিয়ে কাজ করি।পেজের নাম Aara’s wardrobe, Aara’s Rannaghor আর এখন একটা গ্রুপ নিয়ে কাজ করছি নকশার বাক্স।যেখানে সবাই নিজস্ব ডিজাইন গুলো তুলে ধরতে পারে।
২০১৭ থেকে ব্যবসা টা শুরু করি।ডিজাইনার হওয়ার ইচ্ছাটা আমার ছোট বেলা থেকে।বাসার মানুষের চাপে হিসাব বিজ্ঞান নিয়ে ভালো রেজাল্ট করে ও কিছু করার সুযোগ হয় নাই।কারণ ততদিনে আমি একজন মা।আর বাচ্চাকে বাসায় রেখে কিছু করার সাহস আমার কোন কালে ও হবে না আর সবচেয়ে বড় যে কারণে করা তা হচ্ছে নিজের আত্নবিশ্বাস,আত্নসম্মান টাকে ধরে রাখার জন্যে করা।কারো কাছ থেকে হাত পেতে সব সময় নেয়া আর সাথে কৈফিয়ত দেয়া এটা আমার ধাতে নেই।

যেই সময় টাতে আমার এই কাজ টা শুরু করি তখন আমার মূলধনই ছিল না।এটাই সবচেয়ে বড় কষ্টকর ব্যাপার ছিল।তারপরও নিজের হাত খরচ আর মায়ের কাছ থেকে নিয়ে একটু একটু কাজ করা।তখন সেল ছিল মোটামুটি।তবে অন্তত নিজের টুকটাক চাহিদা মেটানো যেত।

তবে এই অনলাইন ব্যবসা অনেক কিছু শিখেয়েছে।ভালো কিছু দিলে আপনি অবশ্যই ভালো ফল পাবেন।এখানে দু রকমের কাস্টমার আছে একদল কম দামে ভালো কিছু চায়।যেটা খুব কষ্টসাধ্য ব্যপার। আরেকদল ভালো পণ্য যায় দাম টা সীমাবদ্ধতার ভেতর রেখে।যেটা আমি মেইনটেইন করার পুরো চেষ্টা করে যাচ্ছি।আর মানুষ এখন অনেক ব্যস্ত তাই এই ব্যবসা টা এখন অনেক জনপ্রিয়।

মাঝখানে ১ বা দেড় বছরের মতো অফ ছিল ব্যবসা টা।তারপর আবার ২০২০ এ আবার শুরু করি।খুব আগ্রহী হয়ে একটা মেলায় যোগদান করি।সেখানে ভালো কোন ফলাফল না পেলে ও অনেক কিছু শিখেছি।আর সেখানে ফারাহ ইউসুফ দীবার আপুর মাধ্যমে উই এর দেখা পাই।উইতে আসার পর আমার আর পেছনে ফিরতে হয় নাই। মেয়েদের পোশাকের পাশাপাশি শ্রদ্ধেয় রাজিব স্যারের পরার্মশে লালমোহন মিষ্টি নিয়ে কাজ করি। যেটাতে খুব ভালো সাড়া পাই আর পাচ্ছি ও।আর সেল অনেক গুণ বেড়ে যায়।উই আবার নতুন করে নিজেকে চিনিয়েছে।

প্রতিটি কাজের পেছনে সবারই একটা স্বপ্ন থাকে।আমার ও আছে।নিজের একটা বুটিক হাউস।পাশে ছোট পরিসরে লালমোহন মিষ্টির একটা স্টল থাকবে।আর সেখান থেকে যে আয় হবে তা দিয়ে একদিন একটা বৃদ্ধাশ্রম দেয়ার ইচ্ছে টা বহু দিনের।

শেষে একটা কথা বলতে চাই। আপনারা খুব আন্তরিক।নিজের কথা গুলো খুব সহজ করে বলার সুযোগ করে দিয়েছেন সেই জন্য অনেক ধন্যবাদ ।অনেক অনেক শুভকামনা আপনাদের জন্য।

page link – https://www.facebook.com/Aara001/

page link – https://www.facebook.com/Aaras-Rannaghor-107069954405041/

Group link – https://www.facebook.com/groups/1805443379612509/?ref=share

Products


S.Z.PRINCE

facebookhttps://web.facebook.com/S.Z.PRINCE

WhatsApp no. 01684722205

Magazine page: https://web.facebook.com/TSMEntrepreneursMagazine

আপনিও আপনার গল্প শেয়ার করতে চাইলে আমাকে ম্যাসেজ করতে পারেন।