Contact us to get featured in Entrepreneurs Magazine TSM | Call: 01684722205

তারপর আসলো কেক, আমার ভালোবাসার কেক।Nishat Naila

হলুদের শরবত। জ্বী, রান্নার হলুদ গুড়ার সাথে চিনি দিয়ে তৈরি শরবত, খেয়েছেন কখনো?

অনেক ছোট আমি তখন। ভাইয়া কি সুন্দর তেঁতুল মাখাতে পারতো! ও বলেছিল, তেঁতুলে যে লবণ, চিনি, মরিচ, সামান্য পানি এগুলো মিক্স করে মজার একটা চাটনি হয়, এটা ও নিজে বের করেছে। ও তো একটা শেফ! উফ, আমাকেও কিছু বানাতে হবে। আম্মু বাসায় ছিল না, ভাবলাম নিজে নিজে এটাসেটা মিশিয়ে বিশাল পান্ডিত্যের পরিচয় দিয়ে দিব মজার কিছু বানিয়ে। অতঃপর পানির সাথে হলুদ গুড়া, চিনি, আর কি কি হাবিজাবি মিশিয়ে একটা জোস শরবত বানিয়েছিলাম। সেই শরবতের সৎকার কি আমি করেছিলাম, নাকি আম্মু, সেটা অবশ্য মনে নেই। শুধু মনে আছে, এটা একটা বিশাল অখাদ্য হয়েছিল।

কিন্তু ওইযে, আমার আশেপাশে সবাই শেফ হয়ে যাচ্ছে আমি কেন কিছু পারবোনা?

স্কুলের এক বান্ধবী একদিন অনেক কঠিন একটা রেসিপি দিল। ফ্রেঞ্চ ফ্রাইয়ের রেসিপি। আল্লাহ গো! আলুকে ছিলবো, ধুব, কাটবো, লবণ পানিতে ভিজিয়ে রাখবো, চুলা জ্বালাবো, কড়াইতে তেল গরম করবো, তারপর আমার ফ্রেঞ্চ ফ্রাই ভাজা হবে। আমি তো পুরো কৃতজ্ঞ হয়ে গেলাম এই রেসিপি পেয়ে। এরপর যা হয় আরকি, আম্মু বাইরে গেল, আর আমি লুকিয়ে লুকিয়ে আমার সাধের ফ্রেঞ্চ ফ্রাই ভাজলাম। কয় ঘন্টা লেগেছিল তা ঠিক মনে নেই, তবে আলুগুলো যে ভাজা হচ্ছেনা ভাবতে ভাবতে পুড়িয়ে ফেলেছিলাম এটা বেশ মনে আছে।

তারপর আসলো কেক। আমার ভালোবাসার কেক। ক্লাস ফাইভে আমি তখন। কোচিং এ টিফিনে এক বান্ধবী প্যানকেক বানিয়ে এনেছিল। ‘সত্যি এটা তুই বানাইছিস? কিভাবে বানাইছিস? আমাকে বলবি প্লিজ?’

মেয়েটা আমাকে তার মূল্যবান রেসিপি দিয়ে ধন্য করলো, আর আমি বাসায় এসে সেই রেসিপি প্রয়োগ করে আম্মুকে বরাবরের মতোই ধন্য করে দিলাম। বিশাল জোগাড়যন্ত্র করে আমার যে প্যানকেক তৈরি হলো, সেটাতে সম্ভবত বেকিং পাউডার বেশি দিয়ে দিয়েছিলাম। খেলেই গলায় কেমন করে যেন ধরে। এটা আসলে আমার ভূল না বুঝলেন? একজন শেফের এক্সপেরিমেন্ট। হেহে।

সেই নিশাত, যার কোন খাবার বানানোই সফল হতোনা। ইভেন ১৬/১৭ বছর বয়সেও যেই নিশাত কেক বানাতে গিয়ে আম্মুর প্লাস্টিকের সুন্দর একটা ঢাকনা ওভেনে পুড়িয়ে ফেলায় তার উপর কেক বানানোর ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছিল, সেই নিশাত এখন ১৯ বছর বয়সে একটা পেইজের ওনার। সে এখন নিজে ব্যাসিক কেক তৈরি শেখায়, আবার কেক সেল করে প্রচুর পজিটিভ রিভিউও পায় প্রতিদিন আলহামদুলিল্লাহ। চার মাসে তার ১৬০ টা কেক সেল হয়েছে। তিন মাসের মধ্যে লাখ টাকা সেল, পেইজের কোন বুস্ট ছাড়া আড়াই হাজার লাইক। স্বপ্নের মতো লাগেনা শুনতে? আমার নিজের কাছে অন্তত স্বপ্নের মতোই লাগে৷ আসলে মানুষের জীবনে কখন কি পরিবর্তন আসে, একমাত্র আল্লাহ ছাড়া আর কেউ জানেনা।

ঢাকার মিরপুর থেকে,

আমি নিশাত নায়লা।

ওনার অফ,

Nishat’s Cooking Adventure

S.Z.PRINCE

facebookhttps://web.facebook.com/S.Z.PRINCE

Contact no. 01684722205