Contact us to get featured in Entrepreneurs Magazine TSM | Call: 01684722205

দারুচিনি কাব্য র মশলা হবে নিরাপদ ও নির্ভরতার প্রতীক। Aynun Naher Munmun

আমি মুনমুন, ফেনীর মেয়ে, জন্ম বেড়ে ওঠা গ্রামে,বাবা ছিলেন প্রবাসী যার কারণে খুব হিসেব করে প্রতিটা পা চলতে হতো।গ্রামেরই স্কুল থেকে এসএসসি পরীক্ষায় পাস করি এবং এরপর ফেনী শহরের সরকারি জিয়া মহিলা কলেজে এইচএসসি তে ভর্তি হই।

পরীক্ষার মধ্যে ই একরকম হঠাৎ করে বাবা বিয়ে ঠিক করে ফেলেন,যখন মাত্র স্বপ্নগুলো ডানা মেলতে শুরু করেছিলো।

পরীক্ষা শেষ হওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে বিয়ে ও হয়ে যায়, বিয়ে কি জিনিস তা বুঝে উঠার আগেই।খুব ইচ্ছে  ছিলো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার, কিন্তু গ্রামকেন্দ্রিক, রান্নাঘর সর্বস্ব জীবনে কোনরকম টেনেটুনে সেই একই কলেজে বিএসএস এ ভর্তি হই। কিন্তু নানান টানাপোড়েনের মধ্যে প্রথম বছর গ্যাপ পড়ে যায়, এর মধ্যে ই ছেলে কোলে আসে। এর পরের বছর থেকে বান্ধবীদের সাপোর্টে পড়াশোনায় নিয়মিত হই এবং কমপ্লিট করি।

ততদিনে ছেলেকে স্কুলে দিতে হবে তাই হাসব্যান্ডের কর্মসূত্রে চট্টগ্রামে চলে আসি।এর পরের বছর মেয়ে আসে কোলে।একার সংসারে ছেলের পড়া মেয়েকে সামলানোর পাশাপাশি স্বপ্ন দেখতাম কিছু একটা করবো,নিজের পায়ে দাঁড়াব।

কিন্তু মেয়ে ছোট, হাসব্যান্ডেরও সমর্থন নেই। তারপরও সাহস করে পরিচিত বুটিকস থেকে এনে জামা সেল করতাম। ভালোই চলতো তবে যে কোন উপলক্ষে বেশি চলতো এছাড়া নিজের কোন পেইজ ও ছিলো না। এভাবেই ২০১৫-১৬ চলে গেলো।

২০১৭ তে এলাকার একটি স্বনামধন্য ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে চাকরি পাই।আর এটিই হয়ে যায় পেশা সাথে নেশা ও।স্কুল  তারপর ছাত্র পড়ানো সাথে নিজের সংসার ও ছেলে মেয়ে র পড়া নিয়ে ই ব্যস্ত থাকতাম।

তবে সবসময়ই চিন্তা করতাম একদম নিজে পারি এমন কিছু একটা করবো,যাতে  আমার নিজস্ব একটা ভালোলাগা জড়িয়ে থাকবে।এই লিস্টে রান্না বিষয়টার প্রায়োরিটি সবসময়ই ছিলো কারণ আমার হাতের খাবার যেই খেয়েছে খুব ভালো বলেছে। শুধু সাহস হচ্ছিল না।

সাহস টা এলো লকডাউন পিরিয়ড শুরু র সময়টাতে। নাম পরিচিত ফ্রেন্ড লিস্টে র একজনের পোস্ট থেকে উইমেন এন্ড ই-কমার্স ফোরাম (উই)এর কথা জানতে পেরে নিজেই এড হই।সেই শুরু।

আমি চাইনি গতানুগতিক বাজার থেকে কেনা কোন পণ্য নিয়ে সেটাই বিক্রি করতে।আর তাই বেঁচে নিয়েছি যা আমি নিজের মত করে তৈরী করবো এমন কিছু।

ছোটবেলা থেকে ই আমি নিজে খুব পরিচ্ছন্ন চলতে পছন্দ করি যা পেয়েছি আমার আম্মা র থেকে।আর এই পরিচ্ছন্নতা বিষয় টিকে গুরুত্ব দিয়ে ঘরোয়া পদ্ধতি ব্যবহার করে মশলা তৈরী করার সিদ্ধান্ত নিই যাতে করে নিরাপদ মশলা আমার মতো সবার রান্নাঘরে  ব্যবহার হবে।

পাশাপাশি তালিকায় আছে  আচার ও হোমমেড খাবার।

প্রধানত কাজ করছি সবরকমের রান্নার অর্গানিক  মশলা নিয়ে। আমার মশলা আমি নিজে ধুয়ে শুকিয়ে মরিচের বোঁটা ফেলার পর গুড়ো করি এবং চেলে নিয়ে প্যাকেট করি।এতে করে আমার পণ্য হয়   একদম নির্ভেজাল এবং খাঁটি।রান্নার স্বাদ এবং পুষ্টি গুণ থাকে অটুট। আমার পেইজের নাম দারুচিনি কাব্য।

তিনমাসের উদ্যোক্তা জীবনে সেল হয়েছে ২৫ হাজার টাকার পণ্য। এর মাঝখানে প্রায় একমাস  ডেলিভারি বন্ধ রেখেছিলাম পণ্য তৈরীতে সময় লাগছিলো বলে।আমি চাইনি বাজারের পণ্য কাস্টমার কে দিতে।আর মশলা ধুয়ে শুকিয়ে গুড়ো করাটা কিছু টা সময় সাপেক্ষ ব্যাপার।

আমি সবসময়ই চেয়েছি সততা এবং নিষ্ঠার সাথে কাজ করতে এবং এভাবেই করে আসছি।পাশাপাশি চলছে আচার ও হোমমেড খাবার নিয়ে কাজ।

আমার লক্ষ্য, সবার রান্নাঘরে পৌঁছে যাক নিরাপদ মশলা।

এজন্য চাই সবার সমর্থন।আমরা যেমন লাখ টাকার মাছ মাংস কিনে খাই তা যেন হয় নিরাপদ মশলা র রান্না।

উদ্যোক্তা হিসেবে পথচলা মাত্র শুরু করেছি,  এগিয়ে যেতে চাই বহুদূর যেখানে পৌঁছালে সফল বলা যায়। চাই দারুচিনি কাব্য একটি ব্যান্ড হবে, হবে নির্ভরতার প্রতীক।

https://www.facebook.com/daruchinikabbo/
https://www.facebook.com/daruchinikabbo/

S.Z.PRINCE

facebookhttps://web.facebook.com/S.Z.PRINCE

Contact no. 01684722205