Contact us to get featured in Entrepreneurs Magazine TSM | Call: 01684722205

বহুদিন এর সপ্নকে বাঁচিয়ে রাখার গল্প|Farjana Chowdhury

আমার কথা। সময়টা নভেম্বরের শেষের দিকে।

সাল 2019। অনেক ঝড় তুফান পার করে নিজের একটা পরিচয় তৈরি করলাম। গতানুগতিক পুরনো সেই হাউসওয়াইফ পরিচয় কে চিরতরে মুছে ফেলে শুধু নিজের একটি পরিচয় অর্জন করলাম।

হ্যাঁ, আমি একজন উদ্যোক্তা আপনাদের শোনাতে চাই আমার সেই উদ্যোক্তা হয়ে ওঠার গল্প।

লেখালেখির অভ্যাস কখনো ছিল না কখনো ভাবি নি কলম হাতে তুলবো কিন্তু আমার মনে হয়েছে প্রতিটি ঘরেই মেয়েরা বিভিন্ন ভাবে লাঞ্চিত অবহেলিত অপমানিত হচ্ছে।

আমরা এই আধুনিক যুগে এসেও অনেক পুরনো চিন্তা ধারা কুসংস্কার থেকে বের হয়ে আসতে পারিনি। আজও মেয়েদের যৌতুকের ঘৃণ্য বলি হতে হয় মেয়েরা যেন ঠিক কলের পুতুল। চাবি দিয়ে তাকে ডান-বাম ঘুরানো হয়। তাদের যেন শুধু একটাই পরিচয় ঘর সংসার সামলানো আর সন্তান মানুষ করা।

আজ সত্যি বড় প্রয়োজন এখান থেকে বের হয়ে আসার মেয়েদের যেমন সুশিক্ষায় শিক্ষিত হওয়া উচিত তেমনি উচিত নিজের একটি পরিচয় তৈরি করা। এই বোধ থেকেই আজ আমার নিজের গল্পটি বলা।

আমি ফারজানা। প্রতিটি মেয়ের মত আমারও ছোটবেলায় একটি ইচ্ছা ছিল। স্বপ্ন ছিল ডাক্তার হব অনেকের মতো আমারও সেই স্বপ্নটি পূরণ হয়নি। গ্রাজুয়েশন কমপ্লিট করলাম সবকিছু ভালই চলছিল। কিন্তু ভাগ্য বলে একটা কথা আছে ভাগ্যের দোষে বা নিজের ভুলে হোক জীবনের চাকাটা হঠাৎ করে ঘুরে গেল।

মনের ভেতর একটা সুপ্তবাসনা ছিল কিছু একটা করার কিন্তু পারিপার্শ্বিক অবস্থা অনুকূলে না থাকায় মনের সেই বাসনা সুপ্তই রয়ে গেল। কিন্তু ভাগ্য তো সব সময় খারাপ হয় না মানুষের আমার বেলায়ও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

প্রথম জীবনের ভুলে মোড় ঘুরে যাওয়া জীবনের চাকা যেন আবার আস্তে আস্তে নিজের স্বপ্নপূরণের পথে যাত্রার জন্য প্রস্তুত। 2019 সাল অনেক ঘটনাবহুল একটি বছর আমার জীবনের।

একটি চাকরির খুব দরকার হয়ে পড়ে তখন।কিন্তু অভিজ্ঞতার এই যুগে অভিজ্ঞতা ছাড়া চাকরি কে দিবে বলেন তাই অনেক চেষ্টার পরও যখন একটি মনের মত কাজ পাইনি তখন নিজেই নিজের একটি পরিচয় এর পথ তৈরি করার চেষ্টা শুরু করলাম।

শুরুতে খুব অল্প পুঁজি নিয়ে কাপড়ের বিজনেস শুরু করলাম নিজের একটি পেইজ খুললাম। আর এই কাজে আমার মা ভাই আত্মীয় স্বজন ও বন্ধুদের যথেষ্ট উৎসাহ ছিল সবাই খুব চাইত আমি কিছু একটা করি। এখন 2020 এর আগস্ট মাস চলছে আল্লাহর অশেষ রহমতে বেশ কিছুটা পথ পাড়ি দিয়েছি। চলার এই পথটা বন্ধুর নাহলেও অনেকের অনেক সাপোর্ট পেয়েছি।

যদিও আমি এখনই বলব না আমি সফল হয়েছি কিন্তু অবশ্যই আল্লাহর রহমতে সফলতার দিকে এগুচ্ছি। আমি ফারজানা চট্টগ্রাম থেকে কাজ করছি সালোয়ার-কামিজ শাড়ি নিয়ে। সবার দোয়ায় আমার বিজনেস টাকে আরো প্রসারিত করতে চাই।

ভবিষ্যতে আমার ইচ্ছা আছে এ বিজনেস এর পাশাপাশি ফুড বিজনেস করার। যেহেতু রান্নাটা প্রতিটি নারীর সখ আমিও তার ব্যতিক্রম নই। আমি চাই প্রতিটি নারী তার একটি নিজস্ব পরিচয় তৈরি করুক। কারো মুখাপেক্ষী হয়ে নয় সে নিজেই যেন তার জন্য যথেষ্ট হয়।

শুধু স্বামীর পরিচয়ে বা সন্তানের মা পরিচয়ে নয় তার নিজস্ব একটি পরিচয় থাকবে। যে পরিচয় সবাই তাকে চিনবে জানবে।

জানিনা কতটুকু লিখতে পেরেছি হয়তো গুছিয়ে লিখতে পারিনি যেহেতু লেখালেখির অভ্যাস নেই? তবুও বলবো প্রতিটি নারীর নিজের পায়ে দাঁড়ানো টা খুব জরুরী। অন্তত নিজের জন্য হলেও।
সবার জন্য শুভকামনা। যদি সময় হয় আমার পেজটা ঘুরে আসবেন।
Owner of Mimi’s

https://web.facebook.com/farjana.chowdhury.79/

https://facebook.com/mimi111281
https://facebook.com/mimi111281

আপনিও আপনার গল্প শেয়ার করতে চাইলে আমাকে মেসেজ করতে পারেন।

S.Z.PRINCE

facebookhttps://web.facebook.com/S.Z.PRINCE

Contact no. 01684722205