Contact us to get featured in Entrepreneurs Magazine TSM | Call: 01684722205

নিজের পরিচয় গড়বো – সেই ভাবনা থেকে চাকরি, চাকরি থেকে উদ্যোক্তা জীবন|শারমিন তানজিয়া

।।নিজের পরিচয় গড়বো – সেই ভাবনা থেকে চাকরি, চাকরি থেকে উদ্যোক্তা জীবন।।

আসসালামু আলাইকুম
আমি শারমিন তানজিয়া। খুব সাধারন, মধ্যবিত্ত পরিবারের মেয়ে। বড় হয়েছি অনেক অনেক বেশি আদরে । নবম শ্রেনী থেকে পেপার পড়ি। মেয়েরা কিছু করছে – এই ধরনের কোন নিউজ দেখলে খুব ভালো লাগতো, আর ভাবতাম – ইস যদি এরকম কিছু হতে পারতাম🤔🤔🤔🤔

জীবনের অনেক চড়াই উৎরাই পার করে অবশেষে নিজের পরিচয়ের জন্য শুরু হলো লড়াই ২০১২ সন থেকে। ভাগ্যিস জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনার্স পাশ করা ছিলাম। তারপর BGMEA University of Fashion & Technology থেকে PGD করলাম Merchandising এ। ২০১৪ থেকে চাকরি জীবন শুরু। ফ্যাক্টরি, তারপর ফরেইন বায়িং হাউজে খুব সফলতার সাথে চাকরি করেছি। কিন্তু মনের ভিতরে সবসময়ই ছিলো, চাকরি না আমার অন্য কিছু করতে হবে, যা আমার নিজের। কারন চাকরি আজ ছাড়লে কাল অফিস আমাকে চিনবে না।
একটা সমস্যার কারনে চাকরি ছেড়ে দিলাম হঠাৎ করেই ২০১৯ এর অক্টোবর মাসে।

সময় এলো এবার আমার মনে আশা পূরনের।
আমার এক ফ্রেন্ড এর সাহস এবং সহযোগিতায় পা দিলাম উদ্যোক্তা জীবনে। নিজের পেইজ ওপেন হলো “Exotic Demands ” নামে ২০১৯ এর নভেম্বরে। যাত্রা বা প্রথম পোষ্ট দিলাম ২০২০ এর জানুয়ারি মাসে।
শুরু করলাম কৃত্রিম ফুল দিয়ে গায়ে হলুদের গহনা তৈরীর কাজ। তখনই আমার মা স্ট্রোক করলেন, কাজ বন্ধ। কিছু দিন পর আবার শুরু করলাম আস্তে আস্তে। আবার করোনার কারনে সব বন্ধ।😔😔😔😔😔

উই এ আমি যুক্ত ছিলাম ২০১৯ এর সেপ্টেম্বর মাস থেকে কিন্তু করোনাকালীন সময়ে আমার সামনে Angel হিসেবে পেলাম WE ( Woman and e- Commerce forum) কে। আমি তো এতো ভয় পেয়েছিলাম যে, ভাবছিলাম আর ১৫/২০ দিন বাঁচবো। কিন্তু উই এ সময় দিলে মনে হতো আমি এক ভিন্ন জগতে আছি। যা কখনো দেখিনি, শিখিনি, ভাবতে ও পারনি – তা আজ করার সাহস পাচ্ছি উই এর সাথে যুক্ত থেকে। দিন দিন পরিবার এবং পরিচিত জনদের অনেক সাপোর্ট পাচ্ছি। কিছু মানুষ কিছু কথা বলবে, এটা স্বভাবিক, এটাতে মন খারাপ হয়। কিন্তু আশায় আছি, মুখে কিছু বলে না, কাজে পরিচয় দিবো। আমার পরিবার আমাকে সাপোর্ট দিচ্ছে, যদিও তারা চায় আমি আবার চাকরি করি।
উই এ না থাকলে হয়তো আরো আগেই আমার পথ চলা বন্ধ হয়ে যেতো। উই এ থাকার কারনে কোর্সেরার মতো ইন্টারন্যাশনাল কোর্স করার সুযোগ পেয়েছি, যা আমার উদ্যোক্তা জীবনে অনেক কাজে লাগবে আশা করি। ২০১২ জুন মাস থেকে উই এ ভালো মতো একটিভ থাকার চেষ্টা করছি। আলহামদুলিল্লাহ শুধু উই এ ৪ মাসে ১ লাখ টাকার মতো সেল হয়েছে।

কাজ নিয়ে বলি কিছু কথা-
সুই সুতার কাজ করা আমার খুব অপছন্দের ছিলো। কারন অনেক কষ্টের এই কাজ গুলি।কি ভাবে যে এই কাজ এত নিখুঁত ভাবে আমি করছি এখন, আমি এবং আমার পরিবার,খুবই অবাক🤔🤔🤔
মামত বোনের বিয়েতে গিয়ে তাদের গায়ে হলুদের গহনা দেখে এবং তা নিয়ে আলোচনা শোনার ভিত্তিতে মাথায় আসলো এই গহনা বানবো, তবে ভিন্ন আংগিকে। ফুলের এই গহনা গুলি যে হলুদ ছাড়া ও অন্যান্য সব অনুষ্ঠানে বা নরমাল ব্যবহার করা যায় এবং এই গহনা যে মানুষের আলাদা একটা ব্যক্তিত্ব ফুটিয়ে তোলে, তা উপস্থাপন করতে চাই। গহনার পাশাপাশি ফ্লোরাল পায়েল, ফ্লোরাল ব্রোচ পিন, বেন্ড, ব্রাইডাল পেন সহ আনকমন ও ইউনিক জিনিস সংযোজন করছি প্রতিনিয়ত।
আরো রয়েছে জামদানী শাড়ি, থ্রিপিস, পান্জাবি, দেশীয় লোন এবং বাটিক থ্রিপিস।

কৃত্রিম ফুলের গহনা গাউছিয়া, নিউমার্কেটে পাওয়া যায়, কিন্তু এভেইলেবেল ডিজাইন, কালার এবং কোয়ালিটিলেস। অনলাইনে পাওয়া যায় কাস্টমাইজড গহনা, যা এখন করছি।
তবে স্বপ্ন – আমার সিগনেচার প্রোডাক্ট -ফুলের গহনা নিয়ে ভিন্ন ভাবে আপনাদের সামনে হাজির হবো, হবো একটা ব্রান্ড। অপেক্ষায় আছি সময় এবং সুযোগের।

সবচেয়ে বড় স্বপ্ন -অন্তত ১০/১২ জন দরিদ্র মেয়ে বা ডিভোর্সি মহিলার জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ করার।
আপনাদের সকলের সহযোগিতা, দোয়া এবং ভালোবাসা একান্ত কাম্য।

ধন্যবাদ আমার মা কে, যে আসলে আমার রোল মডেল। পড়ালেখা, চাকরি, উদ্যোক্তা জীবন -সব সময় আছেন আমার পাশে আছেন ছায়া হয়ে। । হাল না ছেড়ে এগিয়ে যাওয়ার প্রথম শিক্ষা পেয়েছি আমার মা এর কাছ থেকে।
ধন্যবাদ বন্ধু – বান্ধবী মহলকে এবং বিশেষ ধন্যবাদ উই পরিবার কে।

…………………………………………………………………………………………………..

S.Z.PRINCE

facebookhttps://web.facebook.com/S.Z.PRINCE

WhatsApp no. 01684722205

Magazine page: https://web.facebook.com/TSMEntrepreneursMagazine

আপনিও আপনার গল্প শেয়ার করতে চাইলে আমাকে মেসেজ করতে পারেন।